আপনি জানেন কি নিয়মিত চকলেট খেলে ডায়াবেটিস ও হার্টের রোগ দূর হয়?

নতুন একটি পরীক্ষায় দেখা গেছে যে, চকলেটের এতই গুণ যে ডাক্তাররা যদি ভবিষ্যতে নিয়মিত চকলেট খাওয়ার প্রেসক্রিপশন দেন তাহলে অবাক হবার কিছু থাকবে না। ডায়াবেটিস ও হার্ট ডিজিজ কমানোর জন্য গবেষকরা নিয়মিত কিছু পরিমাণ চকলেট খাওয়ার পরামর্শ দেন। অনেকেই চকলেট খেতে ভীষণ পছন্দ করেন এবং তারা প্রায়ই চকলেট খেয়ে থাকেন কিন্তু চকলেটের একদিকে যেমন উপকারিতা রয়েছে তেমনি আবার অতিরিক্ত চকলেট খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতির কারণও হতে পারে। কারণ এতে প্রচুর চিনি ও ফ্যাট রয়েছে কিন্তু বিশেষ করে ডার্ক চকলেটের কথা যখন আসে তখন এই নিয়ম অনেকটাই শিথিলযোগ্য। কেননা ডার্ক চকলেটে সবচেয়ে বেশি থাকে কোকোয়া যেটি ফ্ল্যানভিনয়েড নামে এন্টি অক্সিডেন্টের কাজ করে, বিশেষ করে আমাদের দেহের বিশেষ কিছু অংশের ক্ষয় প্রতিরোধ করে থাকে।

একটা চকলেটের নিয়মিত গ্রহণকারীদের ভেতরে জরিপ চালিয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যায়। পরীক্ষক দলের পর্যবেক্ষণের বিষয় ছিল যে, নিয়মিত চকলেট খাওয়া শরীরের ইনসুলিন রেজিস্টেন্টের  সাথে সম্পর্কযুক্ত কিনা যেখানে দেহের বিভিন্ন কোষগুলো ইনসুলিন হরমোনে সাড়া দেয়না যা টাইপ -২ হার্ট ডিজিজ ও ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। এছাড়া পর্যবেক্ষকরা লিভার এনজাইমের উপরও চকলেটের প্রভাব পরীক্ষা করে দেখেন,যা দিয়ে কলিজা বা লিভার ঠিক মতো কাজ করছে কিনা বোঝা যায়। কিন্তু গবেষণায় পরীক্ষিত হয় যে, নিয়মিত যারা চকলেট খেয়েছেন তাদের শরীরে ইনসুলিন রেজিস্টেন্ট হবার সম্ভাবনা অনেক কম।

অর্থাৎ যারা নিয়মিত চকলেট খান তাদের শরীরে ইনসুলিন ভালো কাজ করবে। কিন্তু পরীক্ষায় এটাও বলা হয় যে বয়স, শিক্ষা, লিঙ্গ, জীবনযাপন ও ডায়েট ভেদে এই ফলাফল ভিন্নরূপ হতে পারে। কারণ পরীক্ষায় আরও দেখা গেছে যে, চকলেটের পাশাপাশি যারা নিয়মিত চা -কফি খান তাদের ক্ষেত্রে চকলেটের উপকারী দিক আরও বেশি প্রকাশ পায়। কারণ চা বা কফিতে  প্রচুর  এন্টি অক্সিডেন্ট পলিফেনল রয়েছে যা হৃৎপিন্ডের বিভিন্ন অসুখ, ডায়াবেটিস এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়।

সুতরাং পরিমিত পরিমাণে চকলেট খাওয়া বিশেষ করে ডার্ক চকলেট স্বাস্থ্যের জন্য একেবারেই ক্ষতিকর নয় বরং উপকারীই বটে। এছাড়া গবেষণায় আরও দেখা গেছে যে, চকলেট ন্যাচারাল এন্টি ডিপ্রেসেন্টের কাজ করে অর্থাৎ মনকে উৎফুল্ল রাখে। তবে এটা অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে, কোনো কিছুই অতিরিক্ত পরিমাণে ভালো নয় তাই চা,কফি বা চকলেট খাওয়ার ক্ষেত্রেও  পরিমিতিবোধ অবলম্বণ করতে হবে।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: