চলুন ঘুরে আসি ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থান সোনারগাওঁ লোক ও কারুশিল্প যাদুঘর ও পানাম সিটি

যারা ঢাকার কাছাকাছি কোন সুন্দর স্থান ঘুরে দেখতে চান তারা চলে যেতে  পারেন ঐতিয্যবাহী সোনারগাওঁ লোক ও কারুশিল্প যাদুঘর ও পানাম সিটিতে । যে কোন ছুটির দিনে ঘুরে আসতে পারেন এই স্থানগুলোতে ।বাংলার প্রাচীন রাজধানী এই সোনারগাঁও স্থাপত্যশৈলীর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য়ের  নান্দনিক ও নৈসর্গিক পরিবেশে ঘেরা । মধ্যযুগীয় আমলে এটি ছিল মুসলিম সুলতানদের রাজধানী। এর আর একটি নাম পানাম সিটি । ছোট ছোট লাল ইট দ্বারা তৈরি পানাম নগরের এই ভবনগুলো। দীর্ঘ সড়কের উভয় পাশে আকর্ষনীয় ও দৃষ্টিনন্দিত মোট ৫২ টি পুরোনো ভবন এই পানাম নগরীকে আকর্ষনীয় করে তুলেছে। প্রায় ষোল হেক্টর জায়গা জুড়ে পানাম শহরের লোকশিল্প ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন অবস্থিত যার মধ্যে রয়েছে ঠাকুরবাড়ি ভবন ও ঈশা খাঁ’র তোরণ ।

যা যা দেখতে পাবেন:

এখানে দেখতে পাবেন  ১টি লোকজ যাদুঘর যার মধ্যে প্রায় সাড়ে চার হাজার নিদর্শন সংরক্ষিত আছে, আরো ও দেখতে পাবেন একটি লোকজ  মঞ্চ, সেমিনার কক্ষ ও কারুশিল্প গ্রাম যা প্রতি শুক্রবার থেকে বুধবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্য়ন্ত খোলা থাকে এবং শুক্রবার দুপুর ১২টা থেকে দুপুর ২টা পর্য়ন্ত জুমার নামাজের জন্য জাদুঘর বন্ধ থাকে।তাছাড়া প্রতি বছর শীতকালে এই পানাম সিটিতে মাসব্যাপী লোকশিল্প মেলা হয়ে থাকে। এই মেলায় এসে পাবেন  ঐতিয্যবাহী পোশাক আশাক থেকে শুরু করে আনুষাজ্ঞিক  প্রয়োজনীয় সকল প্রকার জিনিসপত্র। লোক ও কারুশিল্প যাদুঘর এলাকার ভিতরে কৃত্রিম লেকে মাত্র ২০০ টাকা আধা ঘন্টা ৪-৬ জন নৌকা ভ্রমন করতে পারবেন। তবে নৌকা ভ্রমনের সময় ২০-৫০ টাকার বিনিময়ে মাঝি সঙ্গে নেওয়া বুদ্বিমানের কাজ।

সোনারগাঁও লোক ও কারুশিল্প জাদুঘর হতে আধা-কিলোমিটার দূরে পানাম নগর অবস্থিত। এর আর একটি নাম হচ্চে হারানো নগরী। পানাম নগরীর নির্মাণশৈলী  অপূর্ব এবং এর  নগর  পরিকল্পনা দুর্ভদ্য ও সুরক্ষিত। এ নগরী প্রাচীন বাংলার ঐতিয্যবাহী মসলিন সহ অন্যান্য তাতঁ শিল্পের প্রচার প্রসার ও ব্যবসায়ের তীর্থস্থান ছিল ।পানাম নগরীর বর্তমান যে রুপ তা প্রায় চারশত বছর আগ হতে মোগল নির্মাণ শৈলীর সাথে বৃটিশ স্থাপত্য শৈলীর সংমিশ্রনে ধাপে ধাপে গড়ে উঠেছে। এখানে মূলত জমিদার ও বনিকদের বসবাস ছিল। পাশিাপাশি রাজা ও আমিরদের জন্য পানাম নগরী ও আশেপাশের গ্রামগুলোতে গড়ে উঠেছিল নিপুন কারুকাজ খচিত পাকা ইমারতরাজি। এখানে আরো গড়ে উঠেছিল অট্টালিকা, মসজিদ, মন্দির, মঠ, ঠাকুরঘর, গোসলখানা, কূপ, টাকশাল, দরবার কক্ষ, গুপ্তপথ, প্রশস্থ দেয়াল, নাচঘর, সরাইখানা, খাজাঞ্চিখানা, প্রমোদালয় ইত্যাদি। এখানে আরো দেখা যাবে ৪০০ শত বছরের পুরোনো মটবাড়ি, বয়ে চলা পঙ্খীরাজ খাল।

যেভাবে যাবেন:

গুলিস্থান থেকে মোগড়া পাড়া চৌরাস্তা পর্যন্ত অনেকগুলো বাস সার্ভিস পাবেন এবং জনপ্রতি ভাড়া লাগবে ৩০ হতে ৪৫ টাকা । কম সময়ে যেতে চাইলে স্পেশাল বাস গুলোতে যেতে পারেন সেক্ষেত্রে ভাড়া একটু বেশি লাগবে। মোগড়া পাড়া চৌরাস্তা হতেসোনারগাঁও লোকশিল্প যাদুঘর পর্যন্ত অটোরিকশায় লাগবে জনপ্রতি ভাড়া ১০ টাকা এবং পানাম সিটিতে লাগবে ১৫ টাকা। সোনারগাঁও  লোক ও কারুশিল্প যাদুঘরে প্রবেশ করতে লাগবে জনপ্রতি  ২০ টাকা এবং পানাম সিটিতে লাগবে জনপ্রতি ১৫ টাকা।

ঘুরতে যাওয়ার আগে যে বিষয়গুলো মনে রাখবেন :

এখানে ছবি তোলার ভাল কোন ব্যবস্থা নেই তাই আপনারা ব্যক্তিগত মুঠোফোন ও ক্যামেরা নিতে ভুলবেন না। এখানে খাবারের দাম একটু বেশি তাই যারা ঢাকার আশে পাশে থেকে যাবেন তারা চাইলে বাসায় রান্না করে হটপটে নিয়ে যেতে পারেন এতে খরচ কম হবে এবং স্বাস্থ্যকর খাবারও খেতে পারবেন।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: